স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ওয়ালটন ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগের (ডিপিএল) সুপার লীগে দ্বিতীয় ম্যাচেই হার দেখেছে শীর্ষে থাকা শিরোপার অন্যতম ফেবারিট আবাহনী লিমিটেড। ফতুল্লায় অনুষ্ঠিত ম্যাচে মঙ্গলবার তাদের ২৬ রানে হারিয়েছে শেখ জামাল ধানম-ি ক্লাব। ভারতীয় ক্রিকেটার উন্মুক্ত চাঁদের টানা দ্বিতীয় শতকে এই জয় তুলে এখন ১৬ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে উঠে এসেছে শেখ জামাল। তবে এ হারের পরও ১৮ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষেই আছে আবাহনী। আর মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে লিটন দাসের সেঞ্চুরির পর প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাব ৫ উইকেটে হেরেছে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের কাছে। আর বিকেএসপির ৩ নম্বর মাঠে হাই স্কোরিং ম্যাচে খেলাঘর সমাজকল্যাণ সমিতিকে ৩৪ রানে হারিয়েছে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স।

আবাহনী-শেখ জামাল ম্যাচ ॥ টস জিতে আগে শেখ জামালকে ব্যাটিংয়ে পাঠালে উন্মুক্ত ও সৈকত আলীর ৯০ রানের উদ্বোধনী জুটিতে ভাল শুরু পায় তারা। তবে সৈকত ৫৫ বলে ৬ চার, ২ ছক্কায় ৫৬ রান করে সাজঘরে ফেরার পর ঘুরে দাঁড়ায় আবাহনীর বোলাররা। এরপর উন্মুক্ত একাই লড়ে গেছেন এবং টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরির দেখাও পেয়েছেন। শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেটে ২৫৬ রানের লড়াকু সংগ্রহ পায় শেখ জামাল। উন্মুক্ত ১৩৮ বলে ৮ চার, ৩ ছক্কায় ১০১ রান করেন। আবাহনীর হয়ে মাশরাফি বিন মর্তুজা ৩টি, তাসকিন আহমেদ ও মেহেদী হাসান মিরাজ ২টি করে উইকেট নেন। জবাব দিতে নেমে খুব বড় জুটি গড়তে পারেনি আবাহনীর কোন ব্যাটসম্যানই। এনামুল হক বিজয়ের সঙ্গে ইনিংস উদ্বোধন করেছিলেন মাশরাফি, কিন্তু মাত্র ৭ রানে তার বিদায় নেয়ার পর আর কোন ব্যাটসম্যান দাঁড়াতে পারেননি। কোন হাফ সেঞ্চুরির ইনিংস ছিল না। শেষ পর্যন্ত ৪৭.২ ওভারে ২৩০ রানে গুটিয়ে যায় আবাহনী। ২৬ রানে জয় পায় শেখ জামাল। তাদের হয়ে ৩টি করে উইকেট নেন আবু জায়েদ রাহী ও রবিউল হক।

স্কোর ॥ শেখ জামাল ইনিংস ॥ ২৫৬/৮; ৫০ ওভার (উন্মুক্ত ১০১, সৈকত ৫৬, তানবীর ৩১; মাশরাফি ৩/৪৬, মিরাজ ২/৩৭, তাসকিন ২/৫৯)।

আবাহনী ইনিংস ॥ ২৩০/১০; ৪৭.২ ওভার (মিরাজ ৩৫, বিজয় ৩৪, তাসফিকন ৩১, নাসির ২৮; রবিউল ৩/৩৫, জায়েদ ৩/৫১)। ফল ॥ শেখ জামাল ২৬ রানে জয়ী। ম্যাচসেরা ॥ উন্মুক্ত চাঁদ (শেখ জামাল)।

দোলেশ্বর-রূপগঞ্জ ম্যাচ ॥ টস হেরে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে লিটন দাসের সেঞ্চুরিতে ৫ উইকেটে ২৫৭ রান তোলে প্রাইম দোলেশ্বর। এছাড়া আর কেউ অর্ধশতকও হাঁকাতে পারেননি। লিটন ১২৬ বলে ৯ চার, ২ ছক্কায় ১০৭ রান করেন। এছাড়া ফজলে মাহমুদ ৪৬ এবং ইকবাল আব্দুল্লা ২২ বলে ২ চার, ৪ ছক্কায় অপরাজিত ৪২ রান করেন। জবাবে আব্দুল মজিদ ও মোহাম্মদ নাইমের ১৪০ রানের উদ্বোধনী জুটিতে জয়ের পথে এগিয়ে যায় রূপগঞ্জ। মজিদ ৫৮ এবং নাইম ১০১ বলে ৬ চার, ৫ ছক্কায় ৮৮ রান করেন। মুশফিকুর রহীমের ৩৬ বলে ৩ চার, ২ ছক্কায় করা ৪১ রানে শেষ পর্যন্ত ৪৮.৪ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ২৬০ রান তুলে ৫ উইকেটের জয় পায় রূপগঞ্জ।

স্কোর ॥ দোলেশ্বর ইনিংস ॥ ২৫৭/৫; ৫০ ওভার (লিটন ১০৭, ফজলে ৪৬, আব্দুল্লা ৪২*; নাঈম ২/২৮)।

রূপগঞ্জ ইনিংস ॥ ২৬০/৫; ৪৮.৪ ওভার (নাইম ৮৮, মজিদ ৫৮, মুশফিক ৪১, নাঈম ৩১; ফরহাদ ২/৫৪)।

ফল ॥ রূপগঞ্জ ৫ উইকেটে জয়ী। ম্যাচসেরা ॥ মোহাম্মদ নাইম (রূপগঞ্জ)।

খেলাঘর-গাজী গ্রুপ ম্যাচ ॥ ইমরুল কায়েসের ৬৩, জিম্বাবুইয়ের সিকান্দার রাজার ৯০ রানের ইনিংসে ভর দিয়ে ৬ উইকেটে ৩০৪ রানের বড় সংগ্রহ পায় গাজী গ্রুপ। খেলাঘরের তানভীর ইসলাম ৩ উইকেট নেন। জবাব দিতে নেমে ৮ রানের উদ্বোধনী জুটিতে ভালভাবেই এগিয়ে যাচ্ছিল খেলাঘর। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ৪৯.৩ ওভারে ২৭০ রানেই গুটিয়ে যায় তারা। রবিউল ইসলাম রবি ৬৩ বলে ৬৭, মহিদুল ইসলাম অঙ্কন ৬৯ রান করেন। শেষদিকে মাসুম খানের ৪১ বলের ৪৪ রানের পরও লক্ষ্যে পৌঁছুতে পারেনি খেলাঘর। আবু হায়দার রনি নেন ৩ উইকেট।

স্কোর ॥ গাজী গ্রুপ ইনিংস ॥ ৩০৪/৬; ৫০ ওভার (সিকান্দার ৯০, ইমরুল ৬৩, মুমিনুল ৪৭, নাদিফ ৪৫; তানভীর ৩/৪৩, মাসুম ২/৭৩)।

খেলাঘর ইনিংস ॥ ২৭০/১০; ৪৯.৩ ওভার (অঙ্কন ৬৯, রবিউল ৬৭, মাসুম ৪৪; হায়দার ৩/৪৩, মেহেদী ২/৪৫)।

ফল ॥ গাজী গ্রুপ ৩৪ রানে জয়ী। ম্যাচসেরা ॥ সিকান্দার রাজা (গাজী গ্রুপ)।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here